,

কফি আনানের মৃত্যুতে বিশ্বনেতাদের শোক প্রকাশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।। জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। শনিবার তার মৃত্যুর পর টুইটার ও বিবৃতির মাধ্যমে শোক জানান বর্তমান মহাসচিব অ্যান্থনিও গুয়েতেরেস, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনসহ অনেকে।

শনিবার ৮০ বছর বয়সে থেমে যায় কফি আনানের প্রাণ-স্পন্দন। ১৯৩৮ সালে ঘানায় জন্ম নেওয়া কফি আনান জাতিসংঘের সপ্তম মহাসচিব ছিলেন। প্রথম আফ্রিকান কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে ১৯৯৭ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত দুই মেয়াদে ওই দায়িত্ব পালন করেন তিনি। কর্মী হিসেবে জাতিসংঘে যোগ দিয়ে তিনিই প্রথম সংস্থাটির শীর্ষ পদে আসীন হয়েছিলেন। আনান ফাউন্ডেশনের পক্ষে তার দুইজন ঘনিষ্ট সহকারী ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, সুইজারল্যান্ডের বার্ন শহরের একটি হাসপাতালে শনিবার প্রথম প্রহরে মারা যান তিনি। তবে তার মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে এখনও কিছু জানানো হয়নি। জাতিসংঘ অভিবাসন সংস্থা টুইটারে লিখেছে, আজ আমরা এক মহৎ প্রাণ, নেতা ও স্বপ্নদর্শী মানুষ জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানকে হারানোয় শোকাচ্ছন্ন।

জাতিসংঘের বর্তমান মহাসচিব অ্যান্থনিও গুয়েতেরেস কফি আনানকে ‘শুভশক্তির পথপ্রদর্শক হিসেবে উল্লেখ করেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, ‘অনেকদিক দিয়েই কফি আনান নিজেই জাতিসংঘ ছিলেন। কর্মী হিসেবে যোগদান করে তিনিই একসময় এই সংস্থার নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার সততা ও ইচ্ছাশক্তির কোনও তুলনা হয় না।

আর রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তাকে ‘অসাধারণ ব্যক্তিত্ব’ বলে উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন, ‘কফি আনান সর্বদাই রুশদের হৃদয়ে উজ্জ্বল হয়ে থাকবে।’

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, কফি আনান সবসময়ই একটি সুন্দর পৃথিবীর জন্য লড়াই করেছেন। তিনি বলেন, ‘সকল প্রতিবন্ধকতা ভেঙে ফেলেছিলেন কফি আনান। সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ পৃথিবীর জন্য কখনোই লড়াই থামাননি।’

জাতিসংঘের মানবাদিকার বিষয়ক হাই কমিশনার জায়েদ রাদ আল হুসেন এক টুইটবার্তায় বলেন, তিনি আনানের মৃত্যুতে গভীরভাবে শোকাহত।

এদিকে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘বিশ্ব শুধু একজন আফ্রিকান নেতাই হারালো না বরং আন্তর্জাতিক শান্তির এক নিরলস যোদ্ধাকে হারালো।’

কফি আনান ফাউনন্ডেশন এক বিবৃতিতে তাকে বিশ্ব-কূটনীতির সফল ব্যক্তি ও গভীর প্রতিশ্রুতিবদ্ধ আন্তর্জাতিকতাবাদী আখ্যা দিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শান্তিপূর্ণ ও ন্যায়পরায়ন বিশ্ব প্রতিষ্ঠায় জীবনভর সংগ্রাম করেছেন তিনি। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘যেখানেই দুর্ভোগ বা মানবিক আর্তি, সেখানেই ছুটে গেছেন তিনি। গভীর সমবেদনা ও সমানুভূতিতে হৃদয় ছুঁয়েছেন বহু মানুষের। নিজের বদলে অন্যদের কথাই আগে ভেবেছেন তিনি, যা করেছেন তার সবকিছুই দ্যুতি ছড়িয়েছে সত্যিকারের মমতা, আন্তরিকতা আর মেধার।’

২০০৭ সালে মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা বৈশ্বিক নেতাদের গ্রুপ দ্য এলডারস’র প্রতিষ্ঠা হলে এর সদস্য হন কফি আনান। ২০১৩ সালে ওই গ্রুপের চেয়ারম্যান হন তিনি। ২০০১ সালে জাতিসংঘ এবং কফি আনান যৌথভাবে নোবেল শান্তি পুরস্কার লাভ করেন। ২০০৬ সালে মহাসচিবের দায়িত্ব ছাড়ার পর সিরিয়া সংঘাতের শান্তিপূর্ণ সমাধান খুঁজতে জাতিসংঘের বিশেষ দূত হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

Share Button


     এ বিভাগের আরো খবর পড়ুন

বিজ্ঞাপন দিন