,

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৭০ কি:মি: যানজট

জনমত রিপোর্ট :যানজট যেন পিছু ছাড়ছেনা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের। একদিকে মুক্ত থাকলে অন্যদিকে অ-সহনিয় যানজট। মহাসড়কে প্রায় ৭০ কিলোমিটারজুড়ে দীর্ঘযানজট সৃষ্টি হয়েছে। কাঁচপুর ব্রিজ থেকে কুমিল্লার চান্দিনা পর্যন্ত এ যানজটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে আছে হাজার হাজার গাড়ি। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন কয়েক হাজার যাত্রী। এর আগে গত কয়েকদিন ফেনীর ফতেহপুর ওভারপাস এলাকার যানজট গত সোমবার দুপুরের পর থেকে কমতে শুরু করে। অন্যদিকে ঢাকামুখী কুমিল্লার দাউদকান্দিতে যানজট তীব্র হয়। ভোর থেকে দাউদকান্দি টোলপ্লাজা অংশে যানজট তীব্র আকার ধারণ করে। এতে যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়ে যায়। বিপাকে পড়েছে এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা।
এদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সৃষ্ট যানজটের কারণে পণ্যবাহী গাড়ী ভাড়া বেড়েছে দ্বিগুণ। দেখা দিয়েছে পণ্য পরিবহনে নিয়োজিত গাড়ী সঙ্কট। যানজটের কারণে ২/৩ দিন পণ্যবাহী গাড়ী রাস্তায় অবস্থান করতে হচ্ছে। অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েও গাড়ী পাওয়া যাচ্ছে। ফলে বাজারে চালসহ অন্যান্য পণ্যের মূল্যে বিরূপ প্রভাব ফেলেছে। পণ্য পরিবহণ মালিক সমিতির নেতারা জানান, যানজটের কারণে অন্যান্য জেলা থেকে কুমিল্লায় আবার কুমিল্ল থেকে বাইরে ভাড়া নিয়ে চালকরা যেতে চাচ্ছে না। শুধু পণ্যবাহী গাড়ীই নয়, যাত্রীবাহী বাসের যাত্রী কমে যাওয়ায় রেল ও বিমান পথে যাত্রীর চাপ বেড়েছে।
স্থানীয় সূত্র ও হাইওয়ে পুলিশ জানায়, মহাসড়কের কাঁচপুর ব্রিজ থেকে কুমিল্লার চান্দিনা পর্যন্ত প্রায় ৭০ কি:মি: যানজট রয়েছে। মহাসড়কে অতিরিক্ত গাড়ির চাপ আর টোলপাল্লাজায় ধীরগতির কারণে যানজট নিয়ন্ত্রণে আসছে না। ফেনীর যানজটমুক্ত হওয়ায় যানবাহনগুলো দ্রæত গতিতে এসে জড়ো হয় সেতুর টোল প্লাজায়। সেখানে থেকে সেতুতে উঠার সময় যানবাহনের গতি ৮০ শতাংশ কমে আসে। আর চারলেনের গাড়িগুলো দুই লেনের সেতুতে চলাচলে ধীর গতির ফলে মূলত এ যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাঁচপুর সেতু এলাকায় মহাসড়কের যানজট পরিদর্শনে আসেন সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমরা বসে নেই। এখানে রাস্তার কোনো সমস্যা নেই। রাস্তা চারলেন হয়ে গেছে। ফেনীর ফ্লাইওভারের কাজও শেষ। আশা করি দ্রæত এর সমাধান হবে। এ সময় তার সাথে হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজি আতিকউল্লাহও উপস্থিত ছিলেন।
টানা যানজটে আটকে থেকে যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়ছে। বিপাকে পড়েছে এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা। কুমিাল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর মুন্সী ফজলুর রহমান সরকারি ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কয়েকজন বলে, আইসিটি বিষয়ের পরীক্ষা দিতে উপজেলার হাসানপুর শহীদ নজরুল সরকারি কলেজ কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে রওনা দিয়েছিলেন। কিন্তু ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দির গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ডে এসে যানজটে আটকা পড়ে ছয় কিলোমিটার পথ হেঁটে দৌড়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছাতে হয়েছে তাদের।
এদিকে গত কয়েকদিন যাবত চলমান যানজটে চাহিদা অনুপাতে কুমিল্লায় চাল আসছে না। কুমিল্লার চালের যোগান উত্তরাঞ্চল থেকে আনা চালের উপর নির্ভরশীল। প্রতিদিন সিরাজগঞ্জ, দিনাজপুর, নওগাঁ থেকে শতাধিক গাড়ী চাল কুমিল্লায় ও চট্টগ্রামে আসে। পণ্য পরিবহনের জন্য গাড়ীও মিলছে না। জানতে চাইলে কুমিল্লার চাল ব্যবসায়ী ফটিক সাহা দৈনিক ইনকিলাব বলেন, স¤প্রতি বাজারে চালের বাজার কমতির দিকে ছিল। এখন মহাসড়কে যানজটের কারণে চালের বাজার আবার উর্ধ্বমূখী হয়ে উঠেছে। চাহিদা অনুপাতে চাল আনা যাচ্ছে না। গাড়ী ভাড়া ৪/৫ হাজার টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। চাল ছাড়া অন্যান্য ভোগ্যপণ্যের দামেও বিরূপ প্রভাব পড়েছে।
পণ্য পরিবহন সমিতি সূত্র জানায়, পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান ভাড়া নির্ধারিত নেই। বিভিন্ন স্থানে গাড়ী আটকা পড়েছে। ১৭/১৮ হাজার টাকার ভাড়া এখন ৩০/৩২ হাজার টাকা হয়েছে। যানজটের কারণে ২/৩ দিন গাড়ী রাস্তায় অবস্থান করতে হচ্ছে। চালকরা ভাড়া নিয়ে যেতে রাজী হচ্ছে না। বান্দরবন থেকে ঢাকাগামী কাঠ বহনকারী ট্রাকের চালক আলমগীর জানান, গত দুই দিন ফেনীতে যানজটে আটকে থেকে কুমিল্লা অংশে এসেও একই অবস্থা। মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত দাউদকান্দির রায়পুরে যানজটে আটকে আছি। কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বাসিন্দা এম.এ ফিরোজ জানান, ভোর ৬ টার দিকে কুমিল্লার জাঙ্গালিয়া থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছি। বেলা ১২ টায় এখনও আটকে আছি দাউদকান্দি ব্রিজে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানবাহন আটকে আছে। হাইওয়ে পুলিশের দাউদকান্দি থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, গত তিনদিন ধরে দাউদকান্দিতে বড় ধরণের কোন যানজট ছিল না, গতকাল মঙ্গলবার ভোর থেকে ফেনীর ফতেহপুর ওভারপাস যানজটমুক্ত হওয়ায় যানবাহনগুলো দ্রæত গতিতে এসে জড়ো হয় দাউদকান্দি সেতুর টোল প্লাজায়।
ফেনী হাইওয়ে পুলিশ, জেলা পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় গত ১০ তারিখ থেকে শুরু হওয়া যানজট গতকাল দুপুরের পর স্বাভাবিক হয়ে যায় বলে জানান জেলা ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক মীর গোলাম ফারুক। মহাসড়কে ফেনীর ফতেহপুরে রেলওয়ে ওভারপাস নির্মাণ কাজ চলার কারণে সৃষ্ট যানজট কুমিল্লার পদুয়া থেকে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড পর্যন্ত অন্তত ১২০ কিলোমিটার ছাড়িয়ে যায়। ওই সময় ঢাকা-চট্টগ্রাম দূরত্ব অতিক্রম করতে যানবাহনগুলোর ১৭/১৮ ঘণ্টা এমনকি তার চেয়েও বেশি সময় লেগেছে।
এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হয় এবং রোববার ঢাকা-চট্টগ্রাম পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা ধর্মঘটের ডাক দেন। ওইদিন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ২৫ দিনের মধ্যে ফতেহপুরের ওভারপাস নির্মাণ শেষ করার ঘোষণা দেন এবং একইদিন রাতে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা আসে। পুলিশ সুপার এস এম জাহাঙ্গির আলম সরকার দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, শনি, রোববার ও সোমবার মধ্যরাতে জেলা পুলিশ সুপারের তৎপরতায় সারারাত পুলিশের ১০টি টিম যানজট নিরসনে কাজ করেছে। ফতেহপুর রেলওয়ে ওভারপাস নির্মাণকাজ চলমান থাকার পাশাপাশি চলন্ত অবস্থায় দীর্ঘক্ষণ গাড়ি যানজটে বসে থাকার ফলে চালকরা ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়ায় যানজট তীব্র হয়েছিল

Share Button


     এ বিভাগের আরো খবর পড়ুন

বিজ্ঞাপন দিন