,

দুই তুর্কি মন্ত্রীর ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

জনমত ডেস্ক  ।।  তুরস্কের প্রভাবশালী দুজন মন্ত্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। গুপ্তচরবৃত্তি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনার অভিযোগে তুরস্কে এক মার্কিন যাজক গ্রেপ্তারের প্রতিক্রিয়ায় এ পদক্ষেপ নিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। পাল্টা জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের এ সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছে তুরস্ক। দেশটি যুক্তরাষ্ট্রকে তাদের ভুল সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহ্বান জানিয়েছে। না হলে প্রতিশোধ নেয়ার হুমকি দিয়েছে দেশটি। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা।
খবরে বলা হয়, তুরস্কের আইনমন্ত্রী আব্দুল হামিত গুল ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুলেইমান সোলুর ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র সারাহ হুকাবি স্যান্ডার্স বলেন, ৫০ বছর বয়সী অ্যান্ড্রু ক্রেইগ ব্রুনসনকে আটকে রাখার ঘটনায় ট্রাম্প প্রশাসন তুরস্কের আইনমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। এই দুই মন্ত্রী ব্রুনসনের গ্রেপ্তারের পেছনে কলকাঠি নেড়েছেন। নিষেধাজ্ঞা আরোপের ফলে যুক্তরাষ্ট্রে এই দুই মন্ত্রীর মালিকানায় থাকা সকল সম্পদ জব্দ করা হবে। পাল্টা জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের পদক্ষেপের নিন্দা জানিয়েছে তুরস্ক। এক বিবৃতিতে দেশটি বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্ত তুরস্কের বিচার ব্যবস্থার প্রতি অবমাননামূলক। এতে দু’দেশের মধ্যে সৃষ্ট সংকট সমাধানের প্রচেষ্টা বাধাগ্রস্ত হবে। যুক্তরাষ্ট্রের এমন পদক্ষেপে কোনোই লাভ হবে না বলে জানিয়েছে দেশটি। এ ছাড়া, যুক্তরাষ্ট্র তাদের অবস্থান পরিবর্তন না করলে পাল্টা পদক্ষেপ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে তুরস্ক।

প্রসঙ্গত, অ্যান্ড্রু ব্রুনসন ইজমিরের একটি প্রটেস্ট্যান্ট চার্চের যাজক ছিলেন। ন্যাটোর প্রভাবশালী দুই অংশীদার তুরস্ক ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সাম্প্রতিক উত্তেজনার মূলে রয়েছেন তিনি। তুরস্কের দাবি, তিনি ২০১৬ সালের অভ্যুত্থান প্রচেষ্টার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। গুপ্তচরবৃত্তি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমে জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে গত সপ্তাহে তাকে গৃহবন্দি করে তুরস্কের কর্তৃপক্ষ। আরোপ করা হয় ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। তুরস্কের এই পদক্ষেপ ভালোভাবে নেয় নি যুক্তরাষ্ট্র। আক্রমণাত্মক বক্তব্যের পর এবার দুই তুর্কী মন্ত্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তারা। কিন্তু কোনো হুমকিতেই পিছু না হঠার ঘোষণা দিয়েছে তুরস্ক। বুধবার দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেন, তার সরকার আপন গতিতে চলবে। কোনো কিছুতেই পিছু হঠবে না। তিনি বলেন, আমরা এ ধরনের আক্রমণাত্মক ভাষাকে পাত্তা দিই না। তুরস্কের সংখ্যালঘু গোষ্ঠীরা ওই যাজকের গ্রেপ্তারের ঘটনায় উদ্বেগ জানানোর পর এরদোগান এসব কথা বলেন।

Share Button


     এ বিভাগের আরো খবর পড়ুন

বিজ্ঞাপন দিন