,

স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ফলাফলে থেরেসা মে’র স্বস্তি

জনমত ডেস্ক : স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টি আশাতীত ফল লাভ করায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। বিগত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দক্ষিণপন্থি দল ইউকে ইন্ডিপেন্ডেন্ট পার্টি (ইউকেআইপি) বড় জয় পেলেও এবারে তাদের প্রায় উড়িয়ে দেওয়া কনজারভেটিভ পার্টির এই বিজয়কে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। বিরোধি দল লেবার পার্টি সরকারবিরোধি ক্ষোভকে পুঁজি করলেও কনজারভেটিভ পার্টির দখলে থাকা কয়েকটি সম্ভাব্য আসন দখলের চেষ্টা করেও হেরেছে তারা। এর মধ্যে রয়েছে লন্ডনের ওয়ান্ডসঅর্থ, ওয়েস্টমিনিস্টার। তবে প্লাইমাউথে নিজেদের আসন ধরে রেখেছে তারা, ট্রাফোর্ডের সবচেয়ে বড় দলও বনেছে তারা।

নির্বাচনী লড়াইয়ের অন্যতম বড় ময়দান ওয়ান্ডসঅর্থ সফরের সময় থেরেসে মে বলেন, ‘এই অভাবনীয় ফলাফল স্থানীয় কাউন্সিলরদের কঠোর পরিশ্রমের কারণেই এসেছে। বরাদ্দ করা কোনও অর্থই আমরা ফিরিয়ে নিতে চাই না আর তারা তাদের কাজ এগিয়ে নিতে থাকবে।’

দলের এই ফলাফল নিজ দলের অভ্যন্তরে থেরেসার নেতৃত্বের সমালোচকদের মুখ আপাতত বন্ধ রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে। মেট্রোপলিটন ও ডিস্ট্রিক্ট কাউন্সিলসহ ১৫০টি স্থানীয় সরকার পর্যায়ের নির্বাচনকে থেরেসা মে-র সরকারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা বিবেচিত হচ্ছে। গত বছরের জুনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের পর এবারই প্রথম জনমত প্রতিফলনের ঘটলো।

বড় দুটি দলই নির্বাচনি প্রচারণায় হোঁচট খেয়েছে। ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টি সে সময়ে অভিবাসন ইস্যুতে উইন্ডরাশ স্ক্যান্ডারের মুখে পড়েছিল আর লেবারপার্টির বিরুদ্ধে উঠেছিল ইহুদিবিদ্বেষের অভিযোগ।লিবারেল ডেমোক্রাটিক পার্টির স্থানীয় নির্বাচনে ভালো করার প্রবণতা রয়েছে। লন্ডনের রিচমন্ড ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে তারা।

বিরোধিদলীয় নেতা জেরেমি করবিন এই ফলাফলখে নিরেট বলে বর্নণা করেছেন। তিনি বলেন, গত বছরের নির্বাচনে ১৯৪৫ সালের পর থেকে আমরা সর্বোচ্চ সংখ্যক ভোট পেয়েছিলাম। এবারের স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সেই ভোট আরও সংহত হয়েছে। আমরা আরও এগিয়েছি।

তিনি বলেন, যেসব জায়গায় আমরা হেরেছি তা নিয়ে আমি অবশ্যই হতাশ তবে যদি পুরো পরিস্থিতির দিকে তাকানো হয় তাহলে দেখা যাবে দেশজুড়ে লেবার পার্টি প্রচুর আসন পেয়েছে। যেসব জায়গায় আগে ভোট পাইনি সেসব জায়গায় আমরা প্রচুর ভোট পেয়েছি।লিবারেল ডেমোক্রাটিক পার্টির নেতা এডওয়ার্ড ডেভি বলেছেন, ভিন্স কেবেলের নেতৃত্বে দল যে ভালো করছে তার প্রমাণ রেখেছে এই ফলাফল। করবিনের নেতৃত্বাধীন লেবার পার্টির কার্যকর বিকল্প হওয়ার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে দল

Share Button


     এ বিভাগের আরো খবর পড়ুন

বিজ্ঞাপন দিন